Monday, May 25, 2015

অবস্থান


২৫ মে ২০১৫ 

অবস্থান  

কে কোথায় অবস্থান করে
প্রত্যেক
টি রাতের আকাশে সবাই চিনে রাখে।
তবে সব সময় বোঝা যায় না
আমরা কার সঙ্গে কথা বলছি।

তাই খড়কুটোর দিনে আমাকে বলতে দিয়ো,
নদীর ওজন আমায় মাপতে দিয়ো,
থাকতে দিয়ো তোমার কাছাকাছি
,
খোলা পিঠ আর
উজ্জ্বল কিছু বিজলিবাতির তারে

তারপর বারবার আমি
অনেক দূরে তাকিয়ে থাকি,
সমুদ্র কিংবা আকাশের নীলে,
তিলে তিলে বাড়ে ঢেউ-এর মতো
মানুষের কাটা মাথা, ভেসে আসে।

সবার চোখের সামনে যাকে মারতে পারোনি
তাকে গোপনেই খাতা পেনসিলে মেরো।



Tuesday, October 21, 2014

এখান থেকে লেখা যায় না

এখান থেকে লেখা যায় না

২০ অক্টোবার ২০১৪


এখান থেকে লেখা যায় না
যে সব জানলাগুলো বেঁচে আছে
নিজের মতো ছায়া ফেলে
সন্ধ্যাবেলা লম্বা হয়, জুড়িয়ে যায়
ভাতস্বভাবের মতো।
সব মেনে নিলে এখানে থেকে যাওয়া যায়
কিন্তু তারপর
নিজেকে আবার ঠেলতে ঠেলতে
এমন কিছু আধখাওয়া পাউরুটি মাখনের কাছে -
নিঃশব্দে জানলাগুলো দোলে,
অথচ ছায়াগুলো কাঁপে না
এমন একটা
algorithm লিখে ফেলতে পারলে,
সেখান থেকেও বোঝা যায়
কিন্তু এখান থেকে লেখা যায় না। 

Monday, July 21, 2014

হোটেল রুম



৫) হোটেল রুম 

আমার হোটেল রুমের দরজায়
আঁকা থাকবে তোমার মুখ
তুমি নম্বর ভুলে গেলেও
গুনতে পারবে তোমার অস্বস্তি। 

আমার বিছানার ধারে রাখা থাকবে
অনেক পুরনো একটি আপেল
ধুয়ে রাখা থাকবে গেলাস,
ক্লান্ত শাওয়ারের জলে
ডুবিয়ে নিতে পারো তোমার শরীর। 

এসিটা অল্প বাড়িয়ে
জড়িয়ে নিয়ো তোয়ালে
ফোন বাজলে তুলতে যেও না।
খালি পায়ে চেয়ারের কাছে এসো
দেখ একটা কাগজের উপর আধুনিক
বাংলা অক্ষরে কিছু লেখা আছে।

তোমার মাতৃভাষা যদি জানতাম
তাহলে তাতেই লিখে রাখতাম
‘আমি ঘরে নেই,
আমি আজ রাতে আর ফিরব না।’

থেকে গেছে



২০ জুলাই ২০১৪

৪) থেকে গেছে 

যে কোন শহরেই বৃষ্টি নামতে পারে এই মুহূর্তে
সব রাস্তা ভিজে যেতে পারে, আমাদের মতো,
চোখের পাতার মতো
কারণ সবাই থেকে যেতে পারে না।
সে এক গ্রীষ্মের স্মৃতিচিহ্ন ধুয়ে দিতে পারে
সে এক চেনা সাবানের গন্ধের মতো ওড়ে।

যে কজন বাড়ি ফেরার
সন্ধ্যের আগে, নদীর ধার দিয়ে
যে কটা আলো নেভার ...
তারপর পড়ে থাকে শুধু অন্ধকারের ত্রিভুজ
চেয়ার আর ছাতাহীন মানুষের সাথে।

সমুদ্র সেই শব্দের কাছে,
নোনতা হয়ে আসে, পাতলা হয়ে আসে।  

Friday, June 06, 2014

নারকেল গাছের মতো



৬ জুন ২০১৪

৩) নারকেল গাছের মতো

এ ক্ষেত্রে একটি নারকেল গাছ
মানুষের চোখের সামনে দাঁড়িয়ে
ক্লান্ত পাতায় সন্ধ্যে নামায়
সমস্ত দিন হয়ে যাওয়া হাওয়ারোদে
নিঃশ্বাসে মনে মনে -
আড়চোখে তাকিয়েছে যেই
কালি তার কোটর বুজেছে
নিয়মের পরিবর্তে এ পাড়ার
সব চেয়ে উঁচু মাথাগুলো
স্বীকার করেছে তারা তার বন্ধু
কখনও হতে পারে নি,
শিকড়ে অনেক ছিঁড়ে গেছে
অনেক দূরে গিয়েও
আচমকা ঘুম ভেঙে দেখে,
অনেক প্রাচীন তার আঙুলের মতো
পাতা উড়ে আসে যত ঘন হয় রাত।

Sunday, May 04, 2014

কবিতাবালি



২) কবিতাবালি

আমার কবিতাবালি তোমার চটিতে
যদি উঠে আসে সব -
সহ্য করবে তুমি সূর্যের রঙ
দানা দানা ফুটে ওঠা জলে বুদ্বুদে,
ছায়া দেয় গাছের মতো কিছু ল্যাম্পপোস্ট।
চুল উড়ে আসে মুখের ওপরে
আরও বেশী মনে হয় তুমি উজ্জ্বল
এরকম তাকিয়ে থাকার দিকে,
যেখানে হাঁটতে হাঁটতে উঠে গেছে আকাশ
যোগাযোগহীন।